বরুড়া সন্ত্রাসীদের চাঁদা না দেয়ায় বাড়িঘর, দোকান পাটে হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট

স্টাফ রিপোর্টার:
কুমিল্লার বরুড়ার আড্ডা চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়িঘর, দোকানে হামলা, লুটপাট ও জায়গা দখল করে রেখেছে কতিপয় সন্ত্রাসী বাহিনী। গত ৯ মার্চ ভুক্তভোগী বরুড়ার উপজেলার আড্ডা ইউনিয়নের ভাতেশ্বর গ্রামের হাফেজ কবির হোসেনের পুত্র মো: শামীম আহাম্মেদ বাদী হয়ে কুমিল্লা বিজ্ঞ জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট ৭নং আমলী আদালতে চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হলো- উপজেলার ভাতেশ্বর এলাকার তাজির ইসলামের পুত্র ইসমাইল হোসেন রিপন (৩২), নজরুল ইসলামের পুত্র আহাদ হোসেন (২৭), মো: আলীর পুত্র আবু হানিফ (২৭) ও মো: ইসমাইল (২৩) ও আশরাফ উদ্দিন (৩৮)সহ অজ্ঞাত ৪/৫ জন। তাদের অত্যাচারে এলাকার অসহায় সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে।
মামলার বিবরণে জানা যায়- কুমিল্লার বরুড়া উপজেলার ভাতেশ্বর চৌমুহনীতে লুৎফুন নাহার সুপার মার্কেটে দোকান ভাড়া নিয়ে শামীম আহমেদ বিসমিল্লাহ ভেরাইটি ষ্টোরে মুদি ব্যবসাসহ গ্রামীণ, একটেল ও এয়ারটেল সিম ব্যালেন্স ট্রান্সফার এর ব্যবসা ও বিকাশ এজেন্টের ব্যবসা করে আসছে। উল্লেখিত আসামীরা দীর্ঘদিন ধরে শামীম আহম্মেদের নিকট ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে আসছিল। শামীম চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে এখানে ব্যবসা করতে দিবে না বলে বিভিন্ন হুমকি ধমকি দেয়। শামীম বিষয়টি স্থানীয় ব্যবসায়ীদেরকে অবগত এবং বিচার চাইলে আসামীরা প্রভাবশালী হওয়ার কারণে কেহই তাদের বিরুদ্ধে বিচার কিংবা কথা বলার সাহস পায় না। উল্টো উক্ত আসামীরা ক্ষিপ্ত হয়ে গত ৯ মার্চ শনিবার সন্ধ্যায় আসামীরা লোহার রড, ছুরিসহ দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে শামীমের দোকানে এসে পুনরায় ২ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকার করলে সন্ত্রাসীরা তাকে লোহার রড দিয়ে এলোপাথারী হামলা চালায়। সন্ত্রাসী আহাদ ছুরি দিয়ে তাকে আঘাত করে রক্তাক্ত জখম করে। এছাড়াও সন্ত্রাসীদের সাথে থাকা লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে আহত করে। এ সময় তার ভাই তাকে বাঁচাতে এগিয়ে আসলে তাকেও রড দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এ সময় দোকানের ক্যাশে থাকা বিকাশ এজেন্টের নোকিয়া মোবাইল যার সিম নং-০১৮৪৪১৯৫৫৫৭, বিকাশের টাকা ৩০ হাজার ২০৮ টাকা এবং মোবাইলের মূল্য ১৮০০ টাকা, আরেকটি মোবাইল যার মূল্য ২ হাজার ৫’শ টাকা সিম নং-০১৬৩৯৯৩৩২১২ এবং এয়ারটেলের লোডের ১ হাজার ৬’শ ৭৫ টাকা এবং শামীমের ব্যবহৃত সামস্যাং গ্যালাক্সি জে ওয়ান এইচ মোবাইল যার মূল্য ৬ হাজার টাকা, ক্যাশে থাকা ৫৬ হাজার টাকাসহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল নগদ টাকা নিয়ে যায়। এছাড়াও দোকানে মুদি মালামাল ফার্নিচারসহ আসবাবপত্র ব্যাপক ভাংচুর করে যার মূল্য ৪০ হাজার টাকার ক্ষতি সাধিত করে।  তাদের চিৎকারে আশে পাশের লোকজন এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসী পালিয়ে যাওয়ার সময় পুনরায় ২ লাখ টাকা না দিয়ে বিকাশের এজেন্টের মোবাইল ফেরত দিতে না এবং মামলা করিলে মেরে ফেলারও হুমকি দেয়। পরে স্থানীয়রা আহতদেরকে উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায়। এ ঘটনায় শামীম বাদী হয়ে কুমিল্লা বিজ্ঞ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে ৩৮৫/৩২৩/৩০৭/৩৮০/৪২৭/৫০৬/১০৯ ধারা মামলা দায়ের করে। আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে বরুড়া থানার অফিসার ইনচার্জকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।
এ বিষয়ে এলাকার স্থানীয়রা জানান-  ইসমাইল হোসেন রিপন, আহাদ হোসেন, আবু হানিফসহ তাদের একটি সন্ত্রাসী বাহিনী রয়েছে। তাদের ভয়ে এলাকার কেহই প্রতিবাদ করার সাহস পায় না। তারা সাধারণ অসহায় মানুষের জায়গা সম্পত্তি দখল করে রেখেছে। পুলিশ প্রশাসনও তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সাহস পায় না। কেহ প্রতিবাদ করলে উল্টো সন্ত্রাসীরা তাদের উপর হামলা চালায়।

1,718 total views, 2 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Lost Password?