বঙ্গবন্ধুর খুনির এলাকায় জীবন ঝুঁকি নিয়ে আওয়ামীলীগকে সুসংহত করেছেন আলী আশরাফ – চান্দিনায় মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রী

মো. জহির রায়হান:
চান্দিনায় মুক্তিযোদ্ধা ও সুধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক এম.পি বলেন- ‘আওয়ামীলীগ সরকারে থাকলে মুক্তিযোদ্ধা, দেশের ও জনগণের ভাগ্যের উন্নয়ন হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সময়ে সাড়ে তিন বছর আর বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের সাড়ে চৌদ্দ বছর এই আঠার বছরে দেশে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর খুনিদের প্রেতাত্মা জিয়াউর রহমান ও তার স্ত্রী খালেদা জিয়াসহ অন্যরা ত্রিশ বছর এদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিল। তাদের আমলে জনগণের কোন উন্নয়ন হয় নি। বর্তমানে দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। মাথাপিছু আয় ১৭ শত ৫০ মার্কিন ডলার।’ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারও আওয়ামীলীগকে ভোট দিয়ে বিজয়ী করতে আহ্বান জানান মন্ত্রী।
মঙ্গলবার (২ অক্টোবর) বিকালে চান্দিনার দোল্লাই নোয়াবপুর বাজারে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের ১ কোটি ৮৬ লাখ টাকা ব্যয়ে নব-নির্মিত মুক্তিযোদ্ধা ভবন এর উদ্বোধন শেষে দোল্লাই নোয়াবপুর আহসান উল্লাহ্ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি। মন্ত্রী আরও বলেন- ‘বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করেছিল চান্দিনার কর্নেল রশিদ। সেই খুনি রশিদের এলাকায় জীবন ঝুঁকি নিয়ে আওয়ামীলীগকে প্রতিষ্ঠিত ও সু-সংহত করেছেন সাবেক ডেপুটি স্পিকার অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এম.পি। রশিদের বাড়ির পাশে দাঁড়িয়ে মাথা উঁচু করে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার ও রশিদের ফাঁসি চেয়ে আন্দোলন করেছেন তিনি। তিনি বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার অন্যতম স্বাক্ষী।’
মঙ্গলবার সকাল থেকেই সমাবেশ স্থলে মিছিলে মিছিলে মুখরিত করে আওয়ামীলীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। বিকেল গড়াতে মুক্তিযোদ্ধা ও সুধী সমাবেশ বিশাল জনসভায় পরিণত হয়। এতে উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি অধ্যক্ষ মো. আইয়ুব আলী’র সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তৃতা করেন- সাবেক ডেপুটি স্পিকার অধ্যাপক মো. আলী আশরাফ এম.পি। প্রধান বক্তা পুলিশ প্রশাসনকে উদ্দেশ্য করে বলেন- ‘১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা কারী আত্মস্বীকৃত খুনি কর্নেল রশিদকে কতিপয় লোকজন এম.পি বানিয়েছিলো। তারা এখনও বেঁচে আছে এবং চান্দিনাতেই আছে। তাদের ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করলেই রশিদকেও আটক করা যাবে।’
সভায় বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন- সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহিউদ্দিন খান আলমগীর এম.পি, এফবিসিসিআই পরিচালক হেলেনা জাহাঙ্গীর, দুবাই আওয়ামীলীগ সভাপতি মো. দেলোয়ার হোসেন, চান্দিনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা তপন বক্সী, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি এ্যাডভোকেট নিজামুল হক, সাংগঠনিক সম্পাদক এ্যাডভোকেট মহিউদ্দিন আহমেদ আলম,  পৌর মেয়র নাজমুল আলম স্বপন। সভায় চান্দিনা উপজেলা আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক নূরুল ইসলাম তুহিন ও স্থানীয়ভাবে ঘোষিত উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম সুমন এর সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন- মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাজী আবদুল মালেক, উপজেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক দীপক কুমার মজুমদার, লক্ষ্মীপুর আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা আলী নেওয়াজ ওয়াজেদী, পানিপাড়া আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মো. মফিজুল ইসলাম, বাড়েরা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. সেলিম ভূইয়া, জোয়াগ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুস ছালাম সওদাগর, মাইজখার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি গাজী মো. সাদেক হোসেন, উপজেলা তাঁতী লীগ সদস্য সচিব মো. মোজাম্মেল হক প্রমুখ।

1,540 total views, 1 views today

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Lost Password?